• আজ, শুক্রবার, ২২ অক্টোবর ২০২১ | ৭ কার্তিক ১৪২৮ | ১৪ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩
logo

বিশ্ববিদ্যালয়ের ৫ শিক্ষার্থী রিমান্ডে মাদক এলএসডি-কাণ্ডে জড়িত হয়

বিশ্ববিদ্যালয়ের ৫ শিক্ষার্থী রিমান্ডে মাদক এলএসডি-কাণ্ডে জড়িত হয়
এলএসডি (লাইসার্জিক অ্যাসিড ডাইথ্যালামাইড) মাদকে জড়িত থাকার অভিযোগে করা মামলায় রাজধানী থেকে গ্রেফতার বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের পাঁচ শিক্ষার্থীর ৫ দিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত।

রিমান্ডপ্রাপ্ত আসামিরা হলেন- সাইফুল ইসলাম সাইফ (২০), এসএম মনওয়ার আকিব (২০), নাজমুস সাকিব (২০), নাজমুল ইসলাম (২৪) ও বিএম সিরাজুস সালেকীন (২৪)।

আজ সোমবার ঢাকা মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আতিকুল ইসলাম শুনানি শেষে রিমান্ডের আদেশ দেন। আদালতের সংশ্লিষ্ট থানার সাধারণ নিবন্ধন কর্মকর্তা আশরাফ আলী এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানান, ‘এদিন খিলগাঁও থানার মামলায় তদন্ত কর্মকর্তা তাদের আদালতে হাজির করেন। একই সঙ্গে মামলায় সুষ্ঠু তদন্তের প্রয়োজনে আসামিদের ১০ দিন করে রিমান্ডের আবেদন করেন। আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে বিচারক রিমান্ডের এ আদেশ দেন।’ 

এর আগে, গত ৩০ মে ঢাকা মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট বাকি বিল্লাহ বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের তিন শিক্ষার্থীর পাঁচ দিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের মতিঝিল বিভাগের উপ-কমিশনার মো. আব্দুল আহাদ জানান, ২৯ মে রাত থেকে রাজধানীর শাহজাহানপুর, রামপুরা, বাড্ডা ও ভাটারা এলাকায় অভিযান পরিচালনা করে এলএসডি সেবন ও ব্যবসার সঙ্গে জড়িত বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের ওই ৫ শিক্ষার্থীকে গ্রেফতার করা হয়। তাদের কাছ থেকে দুই হাজার মাইক্রোগ্রাম এলএসডি, আইস ও গাঁজা জব্দ করা হয়।

তিনি বলেন, গ্রেফতার হওয়া এসব তরুণ জিজ্ঞাসাবাদে বলেছেন তারা সবাই বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী। গত এক বছর ধরে এলএসডি সেবন ও বিক্রির সঙ্গে জড়িত। অনলাইনে তাদের এই ব্যবসার কার্যক্রম পরিচালনা করে আসছিলেন। 

এক প্রশ্নের জবাবে মো. আব্দুল আহাদ বলেন, অনলাইন বিজ্ঞাপনের মাধ্যমে তারা আকৃষ্ট হয়ে এলএসডি সেবন শুরু করেন। তারা মূলত বিদেশ থেকে এলএসডি মাদক সংগ্রহ করে থাকেন। রাজধানীতে ১৫টি গ্রুপ রয়েছে যারা এলএসডি বিক্রি করে আসছেন। গ্রুপগুলো গত এক বছর ধরে এলএসডি বিক্রি ও সেবনের সঙ্গে জড়িত। 

গ্রুপগুলোকে শনাক্ত করা সম্ভব হয়েছে কি না জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমরা প্রাথমিকভাবে জানতে পেরেছি এরা সরাসরি ব্যবসা ও সেবনের সঙ্গে জড়িত। অনলাইনের মাধ্যমে তারা এলএসডি মাদক নিয়ে আসতেন। তাদের শনাক্ত ও গ্রেফতারে কাজ চলছে।

তারা কোন দেশ থেকে এলএসডি আনতেন জানতে চাইলে তিনি বলেন, এরা মূলত ইউরোপের দেশ থেকে এলএসডি আনতেন। কুরিয়ার ও লাগেজসহ বিভিন্ন মাধ্যমে দেশে এলএসডি আসে। বেশ কয়েকটি গ্রুপ দেশে এলএসডি আনার সঙ্গে জড়িত। আমরা এসব গ্রুপের সব সদস্যকে আইনের আওতায় আনতে পারব বলে আশা করি।

দেশে এই গ্রুপগুলো কতদিন ধরে সক্রিয় জানতে চাইলে পুলিশের এই কর্মকর্তা বলেন, তারা গত এক বছর ধরে এলএসডি মাদকের ব্যবসার সঙ্গে জড়িত। এছাড়া গত এক বছর ধরে তারা নিজেরা এলএসডি সেবন করছেন বলে জানা গেছে। তবে গ্রুপের বাকি সদস্যদের গ্রেফতার করলে বোঝা যাবে তারা দেশে কত দিন ধরে সক্রিয়।

সম্প্রতি হাফিজুর রহমান নামে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীর মৃত্যুর ঘটনা তদন্ত করতে গিয়ে ডিবি জানতে পারে, হাফিজ একটি নতুন ও মারাত্মক এক ধরনের মাদকে আসক্ত। এরপরই এলএসডির বিষয়ে তথ্য পেয়ে অভিযান চালায় ডিবি।

ফিচার

Top